পম্পা দেব এর তিনটি কবিতা

196

পার্বণ

সকাল লেখো , আলো লেখো ,
লেখো এই ভাগীরথী তীরে
নীলষষ্ঠী ব্রতকথা , চড়ক চৈত্রে
দূর আরও দূর থেকে
ভেসে আসা প্রচলিত হাওয়া
উপোসি শরীরে তার রেখে যাওয়া
মঙ্গলচিহ্ন, ‘ভালো রেখো হে ঠাকুর
সন্তান সন্ততিরে’।

ইউক্রেন ও রাশিয়ার মাঝামাঝি

আমি কি তোমার সঙ্গে যুদ্ধ করতে পারি।
আমার হাতিশালে হাতি নেই
ঘোড়াশালে ঘোড়া
ছাতাটিও হারিয়েছে এ-পাড়া ও-পাড়া..
এইসব বিবিধের মাঝে কোথা থেকে হল্লা
এসে প’ড়ে,
বোমা প’ড়ে , আগুনে ঝলসে ওঠে
আমাদের গ্রাম , আমাদের বেঁচে
থাকা পুড়ে যায় পুড়ে যায় ,
ইতি-উতি ছাইভস্ম উড়ে যায় সভ্যতার দিকে।

লোকটা

ভোরবেলা বাড়ি ফিরছে ,
মফস্বল দোকান ফেরৎ ,
হাতভর্তি খুশিদিন ! হাতভর্তি সামান্যই !
নত মুখ ,আরো নিচু
কেউ কি বলেছে কিছু আজ?
ধার করে কেনা তাই
অপমান করেছে অন্য লোক?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here