ফকির আলমগীরের মরদেহ সমাহিত

107

করোনা আক্রান্ত হয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন গণসংগীতশিল্পী, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শব্দসৈনিক, বাঁশীবাদক ফকির আলমগীর। প্রয়াত এই শিল্পীর মরদেহ সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা জানানোর জন্য কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নেওয়া হয়েছে।

এদিকে বৃষ্টি ও লকডাউন সত্ত্বেও ফকির আলমগীরকে দেখতে শহীদ মিনারে হাজির হয়েছেন তার ভক্ত-অনুরাগীরা। বরেণ্য এই শিল্পীকে শেষবার শ্রদ্ধা নিবেদন করছেন তারা।

এর আগে আজ (২৪ জুলাই) সকাল ১১টা খিলগাঁওয়ের পল্লীমা সংসদ মাঠে এই বীর মুক্তিযোদ্ধাকে গার্ড অব অনার দেওয়া হয়; সেখানে তার প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জোহরের পর খিলগাঁও মাটির মসজিদে দ্বিতীয় জানাজার পর ফকির আলমগীরকে তালতলা কবরাস্থানে সমাহিত করা হবে বলে জানিয়েছে তার পরিবার।

গতকাল শুক্রবার রাত ১০টার দিকে কোভিড ইউনিটে ভেন্টিলেশনে থাকা অবস্থায় ফকির আলমগীরের হার্ট অ্যাটাক হয়। রাত ১০টা ৫৬ মিনিটে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে বলে জানান ফকির আলমগীরের ছেলে মাশুক।

কয়েক দিন আগে ফকির আলমগীরের করোনা উপসর্গ দেখা দেয়। পরে পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। হঠাৎ অবস্থার অবনতি হলে গত ১৫ জুলাই রাতে তাকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তারপর থেকে সেখানেই চিকিৎধীন ছিলেন। গণসংগীত শিল্পী ফকির আলমগীরের শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটায় সম্প্রতি তাকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়েছিল।

ফকির আলমগীর গণসংগীত পরিবেশন করে ৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানে বিশেষ ভূমিকা পালন করেন। একাত্তরের শব্দসৈনিক হিসেবে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রেও ছিলেন তিনি। শুধু তাই নয়, অস্ত্র হাতে শত্রুর বিরুদ্ধে সম্মুখযুদ্ধে লড়াইও করেছেন এই শিল্পী।

তার মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শোক প্রকাশ করেছেন।