আজাদুর রহমানের গুচ্ছ কবিতা

141

শোক সংবাদ

যখন দেখবেন অত্যাচারের মত
অনবরত কবিতা আসছে,
ভিতর থেকে বিড়ালের পায়ে
লাফিয়ে লাফিয়ে নামছে
ওহীর পর
আরেক ওহী!
সমানে লিখেও
আর
কূল পাচ্ছেন না!

তখন বুঝবেন,
আপনি আপনার কবিতার মধ্যে
নিহত হয়েছেন।
আর
যা আপনি লিখছেন, তা কবিতা নয়,
শোক সংবাদ।

প্রাকটিস

ব্যথিত হৃদয় নিয়ে কারো কাছে যেওনা,
পৃথিবীতে ‘সাহায্য’ বলে কোন শব্দ নাই,
সকলেই ভিখিরি, চেয়ে আছে মুখের দিকে।
প্রাকটিস করে দ্যাখো-
নিজের চেয়ে ভাল উপহাস
আর কেউ তোমাকে দিতে পারবে না।

পাহাড় কেনা

পাহাড় কেনার ব্যাপারটা সত্যি,
এখন সত্যি একটা পাহাড় কিনতে ইচ্ছে করছে।
মনে প্রানে একটা পাহাড় কিনতে চাই।
এই চাকরি, প্রভিডেন্ট ফান্ড, বোনাস বেতন
কিছুই নেব না,
একটা পাহাড় পেলে।
এমন একটা পাহাড়, খুব বড় নয়,
যেন খাঁজে খাঁজে ইরিধানের আবাদ করা যায়,
সিম কলা লাউ লাগানোর মত ভাল রোদ যেন থাকে,
যেন নিচের উপত্যকায় একটা ছোট নদী থাকে,
প্যাচানো, দুষ্টু বালকের মত চঞ্চল।
যেন এক বেলা কেউ এদিকে না আসে।

পুরোনো অভ্যেস

পাহাড় দেখলে পাপ কমে যায়,
এটা আমার পুরনো অভ্যেস !
দুপুরে দুলছে ঘুম,
হাত পা কব্জি,
গাছেদের স্টেশনে অবসর,
যেতে যেতে মেঘের ওপারে
উঠে যায় বাল্যকাল।
এখানে এলে-
পরকাল ভুলে যাই,
পাপ কমে যায়,
এটা আমার পুরোনো অভ্যেস।

ঘোড়ারোগ

সামান্য তিন ছটাক জমিও নেই যে,
ছাপড়া তুলব! একদিন
দুনিয়া ফেলে পা ছড়িয়ে
বসে থাকব পাতানো টংয়ে!!
আর আমারই হলো ঘোড়ারোগ,
পাহাড় দেখে বেড়াই, কিনব বলে
সওদাগরের মত দরদাম করি!
নদী দেখলে মনে হয়
জলের জমিদারি নিয়ে
ভেসে ভেসে একদিন মাছেদের সাথে
নিহত হই।
কম ভাড়ার বাসা যার একমাত্র গর্ত
সেই আমি পাহাড় দেখলে
দাঁড়িয়ে পড়ি, দরদাম করি।

পথ

পথের উপর দাঁড়াও,
হাঁটতে থাকো,
কাউকে কিছু বলো না,
পথ তোমাকে নিয়ে যাবে!
কোথায় যাবেন! -এমন প্রশ্নে ব’লো
আমাকে নয়!
পথকে জিজ্ঞাসা করুন,
পথটা নিশ্চয় জানে
-আমি ঠিক কোথায় যাবো!
পথ তোমাকে নরক ছাড়া
সবখানে নিয়ে যাবে।
শস্য শ্যামলা মাঠ,নদী, পাহাড়
বিদ্যালয়, বাড়ি, ঘাট, বন্দর, জাহাজ
অথবা একেবারেই অন্যকোথাও
যা তুমি ধারনাই করো নি।
পথের মাথায় কোন নরক থাকে না,
নরক থাকে মস্তিস্কে
মাথা থেকে তাকে ঝেঁড়ে ফেলো।
পা রাখো পথে,
কোথাও না কোথাও গন্তব্য আছে।
হাঁটতে থাকো।

বাবা

বাবা, আপনি মরে গিয়ে ভালই করেছেন।
এই টানাহ্যাচড়ার সময়ে আপনি থাকলে আরও একটা ঝামেলা বাড়ত। আমি বরং ফিরছি।
দোজাহানের এক জাহান পার হচ্ছি। বেশ সময় লাগছে বাবা।