তাসমিয়া তহুরা এর গুচ্ছ কবিতা

270

চিরন্তন অবয়ব

তোমার অবারিত ভালোবাসা,আমার কাছে যেন এক আকাশ বিষন্নতা!
তোমার বেখেয়ালি অগাধ স্বপ্ন,আমার আছে আজো অনিশ্চয়তার মাপকাঠি।
তোমার হাসিটা মনে হয় মেকি,গাঢ় অন্ধকার গ্রাস করে মনের গহীন কোণে।
আমার নির্ভেজাল নয়নে তুমি আমার স্বচ্ছ স্বপ্ন,প্রেমাবেগের নিবিড় বুনন।
তোমার প্রতিটা নিঃশ্বাস যেন আমার অক্সিজেনের ফোয়ারা!

তথাপি বড্ড ভয় হয়,মনে হয় এই বুঝি ডুবাচ্ছো বিষাদগ্রস্থ বাণে;
ভাসাচ্ছো মিথ্যে ছলনার জোয়ারে।
আমার ফুলে ফুলে সজ্জিত বসন্ত জীবনের আলোড়ন থামিয়ে ছেড়ে দিবে আমায় পৃথিবীর বৈরী বাতাসে?
আমি কি হারাবো আমার সর্বস্ব,সুখ!
আশঙ্কায় আকাঙ্খা মুচড়ে ওঠে
রাস্তার খাদে ভাঙা পা ফেলার বিস্ময়ে।
তারপরও তুমি আমার সর্বাঙ্গ ও আহ্লাদে।
তোমার কল্পলোকের আহ্বান সত্তাকে জাগায়।

শর্তহীন প্রেম

ইচ্ছে করে অসীম নীলাকাশে বৈকালিক মেঘের মতো উড়ি;
মেহগনিঘেরা পুকুরপাড়ে জিরিয়ে নেই ক্লান্তির ছাপ ঢেকে।
ধরে নেই এ জীবন তোমার জন্য ধার করা।
আমি অত্যধিক স্বপ্ন আঁকি তোমার চোখ নীলিমায়।
যদি তুমি ডাক দাও,ফিরবো পশ্চাতে।
এ আমার শর্তহীন প্রেম।

বেদনার বহ্নিশিখা

বেদনা বয়ে যায় আমার সুখে-অসুখে!
তার সমাগম সবকিছুতেই থাকে।
আমার প্রিয় রং নীল,বেদনারও তাই।
তাই হয়তো সে আমার নীড়ে থাকে,ঘিরে থাকে অবিরত।
হঠাৎ করে এক ঝলক খসে পরে আমার বুকে!
সমস্ত সুখ আড়ালে ঢেকে।

দুঃখ-সুখ যেন ভাই ভাই;
কেউ কাউকে ছেড়ে নয়।
তেমনি আমিও নই।
আমাকে ঘিরে সে,আর তাকে ঘিরে আমি!
এইতো বেশ আছি।

যন্ত্রণার কারাগার

অসহ্য যন্ত্রণায় মনের ভেতরটা
শূন্য মরুদ্দানের মতো খা খা করছে।
করোনা নামক অদৃশ্য জীবাণুর আতংকে চার দেয়ালে আটকে আছি।

তোমায় উপলব্ধি করে কাটছে সময়
দিন থেকে রাত হৃদ গহীনে তুমিই আছো।
ঘর থেকে বের হতে পারছি না
উপেক্ষা করে যাচ্ছি আমার সমস্ত অভিলাষ।

বন্দী জীবনে বন্ধ হয়ে আসা ফুসফুস
ঠিকমতো শ্বাস-প্রশ্বাস নিতেও পারছে না!
মুক্তি চাই,মুক্তি।
হে করোনা,আমাকে মুক্ত করে দাও
চষে বেড়াতে চাই প্রেমিকের এপিঠ-ওপিঠ।

কংসের তীর;এপার-ওপারের স্নিগ্ধ হাওয়া,
মাঠের পর মাঠ সবুজ ঘাসের বুকে একখন্ড শিশির বিন্দু।
ভাবনায় হারিয়ে যাই,আমার মনের উঠোনে জাগায় নিরেট সজীবতা।
এ যেনো এক ধ্বংসের স্তুূপ থেকে আবারো জেগে ওঠা।
আমাকে মুক্ত করে দাও,মুক্তি দাও।
আমার অশ্রুভেজা চোখ পুলকিত হোক প্রেমিকের আলতো স্পর্শে।

প্রকৃতি আমার প্রেম,সবুজের সমারোহ
কাজলরেখার মায়া।
জড়িয়ে যাক আমার কালো আঁখিজুড়ে।

অপেক্ষার পথে

তুমি আসবে যে পথে
সে পথেই আমার রাত্রি নামে।
ঘুম নেই…
অবশান্ত হৃদয় জেগে রয়
জোনাক পোকার মতো।

তুমি আসবে যে পথে
পা ফেলি নৈঃশব্দে…
জুতোবিহীন পায়ে।
হারিয়ে খুঁজি না
পেয়ে হারানোর ভয়ে।