সাইফুল্লাহ মাহমুদ দুলাল এর একগুচ্ছ কবিতা

367

মিডিল ফিঙ্গার

কোবরা স্টারশিপ’এর মিডিল ফিঙ্গার বিখ্যাত গানটা আমাকে টানে নি,
তার চেয়ে আদিবাসীদের শিকারে ব্যবহৃত
সাংকেতিক ইশারার ভাষায়
বৃদ্ধা, তর্জনী, মধ্যমা, অনামিকা, কনিষ্ঠার কারুকাজে
আমি মুগ্ধ এবং আমিও ব্যবহার করি ভিন্ন ভাষায়
টিপসই-স্বাক্ষরে।
বডি লেঙ্গুয়েজ আর ফিংগার লেঙ্গুয়েজ সমগোত্রীয়
তবে তফাৎ বাংলা আর অসমীয় বর্ণমালার মতো।
জেনেছি, চিকিৎসাবিজ্ঞানে আঙ্গুলের কোনো নাম নেই,
সেখানে নির্দেশিত হয়- [১ ২ ৩ ৪ ৫] সংখ্যায়।
ঐতিহাসিক তর্জনীর ভূমিকা ইতিহাসে আছে,
বাগদত্তা বন্ধনের জন্য নির্ধারিত
অনামিকা!
তবে মিডিল ফিঙ্গারের অনেক বদনাম।
তুমিও ভালোবাসো মিডিল ফিঙ্গার!

টরন্টো, ৭ জুন ২০২০।

কোমা

বোধহীন জেগে থাকো কবিতায়, কৃতিমতায়।
গভীর অচেতন, অনুপস্থিত। মেশিনে ঘুমাও কোমায়।
বুঝতে পাও না বাস্তব, দেখতে পাও না- বাতাস!
তুমি অর্ধেক মৃত; বাকীটা পুরনো ঢাকা।

টরন্টো, ২৪ জুন ২০২০।

সভ্যতা


দাও; দ্রুত আগে ফিরিয়ে দাও তাদের পোশাক,
বিবস্ত্র করে বিব্রত করা মরণোত্তর অপরাধ!

ফিরিয়ে দাও দ্রৌপদী এবং তার সঙ্গমসঙ্গীর বস্ত্র।
তারপর দেখা যাবে। তারপর যা হবার হবে-
এক্ষণি ফিরিয়ে দাও নিবারণের নূন্যতম অধিকার।

তারা এখন ভীরু পায়ে নিরুপায়, নগ্ন আদিবাসী
ইজ্জত-লজ্জা রক্ষা করছে দুই দু’গুণে চার হাতে।
প্রার্থণাকারীদের বস্ত্র হরণ বন্ধ করো, ফিরিয়ে দাও
সভ্যতা!

টরন্টো, জুন ২১, ২০২০।

ক্ষুধা

মৃত্যুর ক্ষুধার মতো গরীবদের একটু বেশি ক্ষুধা,
এবং অভাবও অনেক ধারালো
চিন্তা খাদ্যের মধ্যে সীমাবদ্ধ, সংক্ষিপ্ত।

জলপানে পেটের প্রাপ্তি মিটে না-
লালিত তীব্র অনাহারকে জানি,
যন্ত্রণাদগ্ধ অভিজ্ঞতায় নেতিয়া পড়া হাত কাঁদে
অথবা কাঁপে
অনটনে নড়বড়ে পা নড়ে অথবা পাথর।
ঘুম-ঘুম এলোমেলো, অস্থির ক্লান্তি।

মৃত্যুর খুব নৈকট্যে থাকে ক্ষুধা
অথবা প্রতিবেশি
জীবনের জানালা দিয়ে আমি তাকে দেখেছি,
মৃত্যুও আমাকে দেখেছে উঁকি দিয়ে।

টরন্টো, ১৪ মে ২০২০।

যে যা করতে চায়, করতে দাও

যে জাদুকর হতে চায়, তাকে জুয়েল আইচ হতে দাও,
যে গান গাইতে চায়, তাকে মাহফুজুর রহমান হতে দাও।

যে নেশা করতে চায়, করতে দাও
যে কবিতা লিখতে চায়, লিখতে দাও
যে ঘুমাতে চায়, তাকে ঘুমাতে দাও
যে দাস হয়ে চায়, তাকে ক্রীতদাস হতে দাও।

যে ধনী হতে চায়, তাকে বেল গ্রেড হতে দাও
যে শিল্পী হতে চায়, তাকে পিকাস্যু হতে দাও

যে ভুলে যেতে চায়, তাকে ভুলে যেতে দাও
যে আত্মহত্যা করতে চায়, করতে দাও
যে প্রধান মন্ত্রি হতে চায়, হতে দাও
যে যা করতে চায়, করতে দাও।

শুধু ধর্ষককে ধর্ষণ করতে দিওনা।
তার জন্য খুনের শাস্তি বিধান পাশ হোক জাতিসংঘে!

টরন্টো, এপ্রিল ২০, ২০২০।

অনি/সিনেটিভি