ইংরেজি ভাষায় নির্মিত হবে মাসুদ পথিকের ‘স্ট্রিট ফিলোসোফার’

314

আহমেদ জামান শিমুল

দুবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিজয়ী নির্মাতা মাসুদ পথিক তার তৃতীয় সিনেমার নাম ঘোষণা করেছেন। ‘স্ট্রিট ফিলোসোফার’ নামের সিনেমাটি নির্মিত হবে ইংরেজি ভাষায়।

‘জীবনের অন্তর্গত দর্শন, যেগুলো আমরা যাপন করছি—কিন্তু বুঝি না, তা নিয়ে ছবির গল্প। বলতে পারেন যে দর্শনগুলোর সঙ্গে আমরা ঠিক বোঝাপড়া করতে পারি না, তা। এতে নাগরিক শিল্পত জীবনের টানাপোড়ন, সংগ্রাম দেখানো হবে’— সিনেমার গল্প নিয়ে মাসুদ পথিক।

তিনি আরও বলেন, এতে একজন বঞ্চিত ব্যক্তির গল্প বলা হবে। যাকে সমাজ বাঁকা চোখে দেখে। তিনি উচ্চতায় ছোট, চিন্তায় সাধারণ মানুষের মত নন।

প্রধান চরিত্রে অভিনয়ের জন্য তিনি একজন অপরিচিত শিল্পীকে বেছে নিয়েছেন। তার নাম আব্রাহাম তানিম। ইতোমধ্যে সিনেমাটির একটি পোস্টার প্রকাশিত হয়েছে। যার ডিজাইন করেছেন চারু পিন্টু।

আন্তর্জাতিক দর্শকদের বাংলাদেশের ছবি সম্পর্কে জানানোর জন্যই এটি ইংরেজি ভাষায় নির্মিত হবে বলে জানালেন মাসুদ। ছবিটি বাংলায় ডাবিং করা হবে কিনা, এ ব্যাপারে এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি বলেও জানান তিনি।

‘নেকাব্বরের মহাপ্রয়াণ’ নির্মিত হয়েছিল নির্মেলেন্দু গুণের কবিতা অবলম্বনে এবং ‘মায়া: দ্য লস্ট মাদার’ নির্মিত হয়েছিল কামাল চৌধুরী ‘যুদ্ধশিশু’ কবিতা এবং শাহাবুদ্দিন আহমেদের পেইন্টিং ‘নারী’ অবলম্বনে। তবে ‘স্ট্রিট ফিলোসোফার’ নির্মিত হচ্ছে ফরাসী ও জার্মান দার্শনিক মিশেল ফোকাল্ট ও ফ্রেডরিক নিটশের দর্শনের অনুপ্রেরণায়।

আগের দুই ছবি বাংলাদেশ সরকারের অনুদানে নির্মিত হলেও এটি নির্মিত হবে মাসুদ পথিকের নিজের অর্থায়নে। তিনি বলেন, ‘ছবিটি একটু নিরীক্ষাধর্মী। তাই নিজেই প্রযোজনা করছি। যদিও মায়ার টাকা এখনও তুলতে পারিনি। কিন্তু আমি থামতে রাজি না।’

সিনেমার কাহিনি ও চিত্রনাট্য মাসুদ পথিকের। শুটিং শুরু হবে মার্চ মাসের শেষ সপ্তাহে।

এ সিনেমা ছাড়া মাসুদ পথিক আরেকটি ছবি নির্মাণ করবেন— ‘দ্য ওল্ড ইজ অ্যালোন’। যার প্রধান চরিত্রে একজন জনপ্রিয় অভিনেত্রী থাকবেন। এটির শুটিং শুরু হবে ‘স্ট্রিট ফিলোসোফার’-এর শুটিং শেষ হওয়ার পর পরই।

মাসুদ পথিকের সিনেমা ‘মায়া: দ্য লস্ট মাদার’ ২০১৯ সালে ৮টি শাখায় ‘নেকাব্বরের মহাপ্রয়াণ’ ২০১৪ সালে ৬টি শাখায় জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন।

অনি/সিনেটিভি