সুপার ৩০ : বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থার প্রতি সুন্দর এক মেসেজ

228

নাইম উদ্দিন নিপু

‘যামানা বাদাল গ্যায়াহে জানাব,
আব রাজা কা বেটা রাজা নেহি বানতা।
রাজা ওহি বানিতা হে,
যো হাকদার হোতা হে।’

কোনো সাফল্যই এমনিই এমনিই আসে না তার পিছনে রয়েছে হাজারো ব্যর্থতার গল্প রয়েছে হাজারো দুঃখ কষ্টের গল্প। সে গল্প শুনতেই হয়ত সহজ মনে হতে পারে কিন্তু যার গল্প একমাত্র সেই জানে বাস্তবতা কতটা কঠিন। ত্যাগ তিতিক্ষার মাধ্যমে অর্জিত বা প্রাপ্ত সুখ কিংবা আনন্দ সেটা পৃথিবীর সব কিছুর থেকে যে বেশি মূল্যবান সেটা এই মুভিটি দেখলে ধারনা পাওয়া যাবে। Super 30 নামটার মতোই সুপার একটা মুভি।

হৃতিক কেমন অভিনেতা তা তো সবারই জানা। বলিউডে এমন সিনেমা খুবই প্রশংনীয়। গল্প, অভিনয় সব কিছু একদম মন ছুয়ে যাবে। কয়েকবার দেখার পরও পুরানো হবে না।

মাস্ট ওয়াচ একটা মুভি। সবার দেখা উচিত বলে আমি মনে করি, ডায়লগ গুলা মনে লেগে থাকবে একদম। সেরা হার্ট টাচিং সিনগুলা বলতে গেলে যথাক্রমে একজন মেধাবি স্টুডেন্টের ট্যালেন্টের সমাপ্তি, ডিপ্রেশনে বাবার মৃত্যু, পাপড় বিক্রি করা, চোখের সামনে ‘UNIVERSITY OF CAMBRIDGE’ এডমিশন পেপার পুড়তে দেখা, নিজের প্রেমিকাকে ত্যাগ করা ইত্যাদি।

এডমিশন পেপার পুড়ার সময় দৃশ্যটা এখনো চোখে ভাসতেছে।ধরেই নিছিলাম ফিল্মফেয়ার টা ওর এবার। কিন্তু এখনকার এ্যাওয়ার্ড শো গুলো… থাক আর বললাম না। বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থার প্রতি ছিলো সুন্দর একটা মেসেজ। যাইহোক আর বেশিকিছু না বলি; যার দেখেন নি তাদের জন্য সাজেশন রইলো।

অনি/সিনেটিভি