‘দ্য গডফাদার নোটবুক’

238

১৯৬৯ সালে প্যারামাউন্ট পিকচার্স ফ্রান্সিস ফোর্ড কপোলাকে প্রস্তাব করলো- মারিও পুজো-র দ্য গডফাদারকে সিনেমায় এডাপ্টেশান করতে। এই সিনেমা সম্পর্কে তাঁর বইয়ের ভূমিকায় তিনি লিখেছেন, “আমি সিনেমাটি নির্মাণ করতে প্রথমে রাজী ছিলাম না, যা ২৪৫ মিলিয়ন ডলার আয় করেছে এবং তিনটি অস্কার জিতেছে। “বইটি আমার পছন্দ হলেও আমি এই বইকে চিত্রভাষায় রুপান্তর করলে বাণিজ্যিকভাবে সেটি সফলতা আনতে পারবে না বলেই প্রথমে ধরে নিয়েছিলাম।”
তবে ত্রিশ বছরের একজন পিতার শেষ পর্যন্ত একটি ভালো এমাউন্টের চেকের ঠিকই দরকার পড়েছিল এবং দ্বিতীয়বার পড়ার পর বইটি সম্পর্কে তাঁর মত বদলিয়ে যায়। “তিন পুত্র সহ এক মহান রাজার গল্পে আমেরিকান পুঁজিবাদের এক রূপক ছিল এই গল্পে”।
তার চিন্তাভাবনাগুলি সংগঠিত করতে কপোলা একটি “প্রম্পট বই” তৈরি করেছিলেন যা তিনি তাঁর কলেজ জীবনে থিয়েটার অনুশীলনের সময় শিখেছিলেন। থ্রি-রিং বাইন্ডিং খাতার মাঝখানে তিনি উপন্যাসটি বসালেন। তারপর সেখানে দৃশ্যগুলোকে ভাগ করে বসালেন, সময়ের নোট, সেট ডিজাইনের নোট এবং চিত্রনাট্যের অন্যান্য টিকাগুলি একই খাতায় বসিয়েছিলেন। সান ফ্রান্সিসকো-এর উত্তর সমূদ্র সৈকতের একটি ক্যাফেতে এক কোণার টেবিলে বসে এই কাজ তিনি করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন “আমি একটি স্বপ্নের ভেতরে ছিলাম। ক্যাফের ভেতরে প্রচুর কলরব, ইতালিয়ান কথাবার্তা এবং খুব সুন্দর তরুণীদের আনাগোনা হচ্ছিল; মনে হচ্ছিল ফরাসি গীতিনাট্য(অপেরা) ‘লা বোহেম’ শুনছি ।”
উল্লেখ্য যে, ‘দ্য গডফাদার নোটবুক’ নামে কপোলার সেই নোটটি সিনেমা মুক্তির ৪৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে ২০১৬ সালে প্রথম প্রকাশিত হয়।